Hawkerbd.com     SINCE
 
 
 
 
ইন্টারনেটের ভ্যাট প্রত্যাহার চায় অ্যামটব [ ] 17/04/2018
ইন্টারনেটের ভ্যাট প্রত্যাহার চায় অ্যামটব
ইন্টারনেট সেবার ওপর আরোপিত ভ্যাট, সম্পূরক শুল্ক ও সারচার্জ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে মোবাইল অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব। সংগঠনটির মতে, বর্তমানে ২১ দশমিক ৭৫ শতাংশ হারে ট্যাক্স (ভ্যাট, সম্পূরক শুল্ক ও সারচার্জ) দিতে হচ্ছে। এ কর প্রত্যাহার করা হলে ইন্টারনেট ব্যবহার বাড়বে, যা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে সহায়ক হবে। এতে দেশও উপকৃত হবে। সোমবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে অ্যামটব নেতারা এ দাবি জানান। এনবিআরের সম্মেলন কক্ষে আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। সিরামিক মেনুফ্যাকচারার্স, বেভারেজ মেনুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনও এ সময় উপস্থিত ছিল।

অ্যামটবের প্রস্তাবের যৌক্তিকতা তুলে ধরে রবি আজিয়াটার হেড অব কর্পোরেট অ্যাফেয়ার শাহেদ আলম বলেন, ইন্টারনেট থেকে ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহার করলে মোবাইল কোম্পানিগুলোর লাভ নেই। এতে জনগণ উপকৃত হবে। বর্তমানে এ খাত থেকে সরকার ১ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব পাচ্ছে। ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহার করা হলে অর্থনীতিতে সুদূরপ্রসারী ইতিবাচক প্রভাব পড়বে। যেমন ১৬ বছর আগে আইসিটি পণ্যের ওপর কর মওকুফ করায় এখন ঘরে ঘরে কম্পিউটার পৌঁছে গেছে। তিনি বলেন, ভ্যাট প্রত্যাহার করা হলে নতুন অনেক উদ্যোগ তৈরি হবে। ইতিমধ্যেই ইন্টারনেটকে পুঁজি করে ১৭টি কার ট্র্যাকিং সার্ভিস তৈরি হয়েছে।

এছাড়াও অ্যামটবের পক্ষ থেকে মোবাইল কোম্পানির কর্পোরেট কর হ্রাস, ই-কমার্স ব্যবসার জন্য নির্দেশিকা প্রণয়ন, সিম ট্যাক্স প্রত্যাহার, ন্যূনতম কর প্রত্যাহার, টক টাইমের ওপর সম্পূরক শুল্ক ও ভ্যাট প্রত্যাহার, সব ধরনের সিএসআরে কর রেয়াত, স্থান ও স্থাপনা ভাড়ার ওপর ভ্যাট প্রত্যাহার এবং মডেম আমদানি ও বিপণন পর্যায়ে ৪ শতাংশ ট্রেড ভ্যাট প্রত্যাহারের প্রস্তাব দেয়া হয়। বকেয়া রাজস্ব পরিশোধের তাগাদা দিয়ে মোবাইল অপারেটরদের উদ্দেশে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, মামলা-মোকদ্দমা করলে উভয়পক্ষেরই আর্থিক ক্ষতি হয়। কোম্পানিগুলোরও মুনাফাতে প্রভাব পড়ে। তাই বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির (এডিআর) আওতায় মামলা নিষ্পত্তির পরামর্শ দেন তিনি। সভায় অ্যামটবের মহাসচিব টিআইএম নূরুল কবির, রবি আজিয়াটার সিইও মাহতাব উদ্দিনসহ এনবিআরের আয়কর নীতির সদস্য কানন কুমার রায়, ভ্যাটনীতির সদস্য রেজাউল হাসান ও শুল্কনীতির সদস্য ফিরোজ শাহ আলম উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে আলোচনায় অংশ নিয়ে সিরামিক মেনুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সিরাজুল ইসলাম মোল্লা বলেন, এক সময় স্যানিটারিওয়্যার, টেবিলওয়্যার ও টাইলস আমদানির ওপর নির্ভরশীল ছিল দেশ। এখন মোট চাহিদার মাত্র ১০-২০ শতাংশ আমদানি হয়, বাকিটা স্থানীয়ভাবে উৎপাদনের মাধ্যমে চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি রফতানি হচ্ছে। এ শিল্পের বিকাশে বাজেটে স্থানীয় শিল্পের সুরক্ষা অব্যাহত রাখতে হবে। এজন্য আমদানিকৃত সিরামিক পণ্যের ওপর সম্পূরক শুল্ক বৃদ্ধি ও আন্ডার ইনভয়েসিং বন্ধ করতে হবে। পাশাপাশি টেবিলওয়্যার ও স্যানিটারিওয়্যারের মতো স্থানীয়ভাবে টাইলস উৎপাদনে সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করতে হবে। আকিজ গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ বশির উদ্দিন বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে উৎপাদনের ওপর আরোপিত উচ্চ ট্যাক্স-ভ্যাট প্রত্যাহার করা উচিত। উচ্চ হারের কারণে অনেক কোম্পানির মধ্যে কর ফাঁকির প্রবণতা দেখা দিচ্ছে। বেভারেজ মেনুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি শামীমা আক্তার বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে বেভারেজ (পানীয়) উৎপাদনে সব মিলিয়ে ৪৩ দশমিক ৭৫ শতাংশ শুল্ক-কর দিতে হয়। এ কর হার বিশ্বের মধ্যে দ্বিতীয়। তিনি বলেন, বর্তমানে এ খাতে নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি দেখা যাচ্ছে। সম্পূরক শুল্ক প্রত্যাহার করা হলে পানীয় দাম কমবে, এতে ভোগ বাড়বে। ফলে রাজস্ব আদায়ও বাড়বে।

সভাপতির বক্তব্যে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, এবারের বাজেট গতানুগতিক নয়, বিনিয়োগবান্ধব হবে। যাতে দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ বাড়ে। তিনি বলেন, সরকারের অন্য বাজেটের মতো এবারও বড় বাজেট দেয়া হবে। তবে করের বোঝা না বাড়ে সেজন্য করজাল বাড়িয়ে রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা আদায় করা হবে।
News Source
 
 
 
 
Today's Other News
• ভারতের ঋণে প্রত্যন্ত অঞ্চলে হবে টেলিটকের টাওয়ার
• টেলিযোগাযোগ খাতে দ্বৈত আধিপত্য ভাঙছে ফিলিপাইন
• বন্ধ হয়ে গেল জনপ্রিয় ইয়াহু ম্যাসেঞ্জার
• রবি ও সেবা ডট এক্সওয়াইজেডের চুক্তি স্বাক্ষর
• গ্রাহক পর্যায়ে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট মূল্য কমানোর সিদ্ধান্ত
More
Related Stories
 
Forward to Friend Print Close Add to Archive Personal Archive  
Forward to Friend Print Close Add to Archive Personal Archive  
 
 
Home / About Us / Benifits / Invite a Friend / Policy
Copyright © Hawker 2013-2012, Allright Reserved
free counters